সোমবার, ২০ নভেম্বর ২০১৭

ঢাকা দক্ষিন

পুরান ঢাকা উন্নয়নে প্রকল্প বাস্তবায়নে সহযোগিতা চাই : মেয়র সাঈদ খোকন

পুরান ঢাকা উন্নয়নে প্রকল্প বাস্তবায়নে সহযোগিতা চাই : মেয়র সাঈদ খোকন

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন বলেছেন, পুরান ঢাকার অবস্থা গ্রামের থেকেও খারাপ এবং শোচনীয়। বসবাসের পরিবেশ নেই। দিন দিন অবস্থার আরো অবনতি হচ্ছে। পুরান ঢাকা উন্নয়নে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) একটি প্রকল্প এগিয়ে নিতে স্থানীয়দের নিয়ে আয়োজিত বৈঠকে মেয়র এ কথা বলেন। শনিবার নগর ভবনের সভাকক্ষে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বিভিন্ন দাতা সংস্থার সহায়তায় ‘আরবান ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট ওল্ড ঢাকা’ শিরোনামে ওই প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয় রাজউক। এতে বাবুবাজার থেকে বংশাল পর্যন্ত ১০ দশমিক ২৭ একর জমির ওপর থেকে স্থাপনা ভেঙে নতুন করে আধুনিক বাণিজ্যিক ও আবাসিক ভবনসহ অন্য নাগরিক সুবিধা সৃষ্টির পরিকল্পনা রয়েছে। এক্ষেত্রে সবার বাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভেঙে যার যার সম্পত্তির মূল্য নির্ধারণ করে প্রাপ্য বুঝিয়ে দেওয়া হবে।

জলে গেল মশা মারার গত অর্থবছরে প্রায় ৩৬ কোটি টাকা

জলে গেল মশা মারার গত অর্থবছরে প্রায় ৩৬ কোটি টাকা

বছরের পুরোটা সময়েই মশার উৎপাতে অতিষ্ঠ থাকে নগরবাসী। মশা-বাহিত রোগ চিকুনগুনিয়া ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ায় মশক নিয়ন্ত্রণে ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনের ব্যর্থতার কথা ক্ষোভের সঙ্গে বলছে রাজধানীর মানুষ। অন্যদিকে মশা-বাহিত রোগে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে নগরবাসী। এমনকি সরকারের একাধিক মন্ত্রীও এসব নিয়ে সংসদে কথা বলেছেন।

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন গত অর্থবছরে প্রায় ৩৬ কোটি টাকা মশক নিধনের জন্য বরাদ্দ রাখলেও তা তেমন কাজে আসেনি। অনেক এলাকার বাসিন্দাদের অভিযোগ, ফগার মেশিনসহ সিটি কর্পোরেশনের সংশ্লিষ্ট কর্মীদের দেখাও পাওয়া যায় না বছরের পর বছর। চিকুনগুনিয়া ছড়িয়ে পড়ায় নগরবাসীর অভিযোগ, বরাদ্দের এই বিশাল অঙ্কের টাকা জলেই গেছে।

অপসারণের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই অ্যানেক্স ভবনের সামনে ভাস্কর্য পুনঃস্থাপন

অপসারণের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই অ্যানেক্স ভবনের সামনে ভাস্কর্য পুনঃস্থাপন

অপসারণের ৪৮ ঘণ্টা পর সুপ্রিম কোর্ট অ্যানেক্স ভবনের সামনে পুনঃস্থাপিত হলো গ্রিক দেবীর ভাস্কর্যটি। ভাস্কর মৃণাল হক গত রাতে ভাস্কর্যটি পুনঃস্থাপন করেন। রাত ১০টার দিকে স্থাপনের কাজ শুরু হয়। শেষ হয় রাত ১টার দিকে। সুপ্রিম কোর্টের অ্যানেক্স ভবনটি বার কাউন্সিল গেটের প্রবেশ পথে। অ্যানেক্স ভবনের পানির পাম্পের সামনে রাখা ভাস্কর্যটি ছোট পিক আপ ভ্যানে করে অ্যনেক্স ভবনের সামনে নেওয়া হয়। এরপর উত্তোলক যন্ত্রের সাহায্যে পিক আপ ভ্যান থেকে ভাস্কর্যটি নামানো হয়। ঝালাই দিয়ে এটি স্থাপন করা হয়। এ ব্যাপারে ভাস্কর মৃণাল হক বলেন, শনিবার সকালেই ভাস্কর্যটি পুনঃস্থাপন করতে সুপ্রিম কোর্ট থেকে নির্দেশনা কোর্টে পাই। ওই নির্দেশনা মোতাবেকই পুনঃস্থাপন করা হলো। পুনঃস্থাপনে সহায়তা করেন ৩৬ জন কর্মী। যারা বৃহস্পতিবার ভাস্কর্য অপসারনে সহায়তা করেছিল। তিনি আরও বলেন, বৃহস্পতিবার ভোর রাতের দিকে অ্যানেক্স ভবনের সামনে বেদির প্রাথমিক কাঠামো তৈরি করা হয়েছিল। মৃণাল হক আরো বলেন, ভাস্কর্যটি সরালাম, এটি আমাদের জন্য পরাজয়।

জুরাইনে রেললাইন ঘেঁষে অবৈধ বাজার

জুরাইনে রেললাইন ঘেঁষে অবৈধ বাজার

রাজধানীর জুরাইন রেললাইন ঘেঁষে আবার অবৈধ অস্থায়ী বাজার গড়ে উঠেছে। ফলে সেখানে ঝুঁকি নিয়ে চলছে বেচাকেনা। একই সাথে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে ট্রেন চলাচলও। গতকাল সোমবার সকালে জুরাইন এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, জুরাইন লেভেল ক্রসিংয়ের পশ্চিম দিকে প্রায় আধা-কিলোমিটার অংশে রেললাইনের দুই পাশে বিভিন্ন পণ্যের পসরা। পূর্বদিকে কাঠের আসবাবপত্রের দোকানও সাজানো হয়েছে। ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে এক ঘণ্টা পরপর ট্রেন চলাচল করে। দেখা গেল, এ অবস্থার মধ্যেই ভাসমান বিক্রেতারা রেললাইন ঘেঁষে পসরা সাজিয়েছেন, ট্রেন আসার শব্দ পেলে দ্রুত সরে যাচ্ছেন। রেলপথের দুই ধারে ঝুঁকি নিয়ে এভাবেই চলছে বেচাকেনা।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩২ নম্বর ওয়ার্ডে যানজট মশার উপদ্রব আবর্জনায় একাকার

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩২ নম্বর ওয়ার্ডে যানজট মশার উপদ্রব আবর্জনায় একাকার

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩২ নম্বর ওয়ার্ডে সমস্যার শেষ নেই। এই এলাকার স্যুয়ারেজ লাইনে প্রায়ই সমস্যা থাকে। রাস্তায় জমে থাকে নোংরা পানি। গন্ধে নাকাল এলাকাবাসী। এছাড়া বেশিরভাগ এলাকার ফুটপাত এবং সড়ক হয়ে আছে বেদখল। এতে করে যানজটের ভোগান্তি পোহাতে হয় বাসিন্দাদের। পুরান ঢাকার এই ওয়ার্ডটিতে নাগরিক সেবা কার্যক্রমের সব ধরনের প্রতিষ্ঠানই রয়েছে। তবে সঠিক পরিচালনা ও সংস্কারের অভাবে কাঙ্ক্ষিত সেবা পাচ্ছেন না এলাকাবাসী। ওয়ার্ডের প্রধান সমস্যা যানজট, সড়ক দখল, ভাঙাচোরা সড়ক, আবর্জনা ও মশার উপদ্রব। এলাকাবাসীর অভিযোগ, এগুলোর ব্যাপারে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি নির্বাচনের আগে প্রতিশ্রুতির ফুলঝুরি ছড়ালেও এখন কোন মাথাব্যথা নেই।

আগামীকাল জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী

আগামীকাল জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী

টানা দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসা আওয়ামী লীগ সরকারের দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি উপলক্ষে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ ভাষণ বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বাংলাদেশ বেতার সরাসরি সম্প্রচার করবে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে। গণতন্ত্র ও সাংবিধানিক ধারা সমুন্নত রাখার লক্ষ্যে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনের পর ১২ জানুয়ারি সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। দুই বছর সময়ে বর্তমান সরকারকে ঘরে-বাইরে নানা সঙ্কট মোকাবেলা করতে হলেও শেষ পর্যন্ত অধিকাংশ ক্ষেত্রে বিজয়ের হাসি এসেছে। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। ৬২ বছরের ছিটমহল সমস্যার সমাধান হয়েছে। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন নিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা লক্ষ্য করা গেলেও সরকার সেগুলো সাফল্যের সঙ্গে মোকাবেলা করতে সক্ষম হয়েছে। সেই পরিস্থিতিতে ইন্টার পার্লামেন্টারি ইউনিয়ন (আইপিইউ), কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি এসোসিয়েশন (সিপিএ) নির্বাচনে বাংলাদেশের বিজয় বড় অর্জন

নিষিদ্ধ ব্যাটারিচালিত ইজিবাইকে ওড়না পেঁচিয়ে বাড়ছে দুর্ঘটনা

নিষিদ্ধ ব্যাটারিচালিত ইজিবাইকে ওড়না পেঁচিয়ে  বাড়ছে দুর্ঘটনা

চাকায় ওড়না পেঁচিয়ে দুর্ঘটনার সংখ্যা আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে । ২০১৪ সালের মে থেকে জুলাই ২০১৫ পর্যন্ত পরিচালিত এক গবেষণায় দেখা যায়, ১৭জন নারী ব্যাটারি চালিত ইজি বাইকে ওড়না পেঁচিয়ে প্যারালাইজড বা পক্ষাঘাতগ্রস্ত হন। আর চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত একই কারণে ২৫জন নারী পক্ষাঘাতগ্রস্ত হন। এ ঘটনায় গত এক বছরে মারা যান ২জন নারী। সেন্টার ফর দি রিহ্যাবিলিটেশন অব দি প্যারালাইজড (সিআরপি) বা পক্ষাঘাতগ্রস্তদের পুনর্বাসন কেন্দ্র এই গবেষণা করে। চার সদস্যের এই গবেষণা টিম জানায়, শহরতলীতে ইজি বাইকের অবাধ চলাচলে নারীর জন্য আশঙ্কাজনকহারে বাড়ছে এই দুর্ঘটনা। সংশ্লিষ্টক্ষেত্রের বিজ্ঞজনেরা বলেন, বিপর্যয় রোধে অনুমোদনবিহীন ইজিবাইক বন্ধে সরকারকে স্থানীয় প্রশাসনের মাধ্যমে কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে।

৪ নেতা মনু, মুন্না, গেসু আর অনুর জাঁতাকলে যাত্রাবাড়ী

৪ নেতা মনু, মুন্না, গেসু আর অনুর জাঁতাকলে যাত্রাবাড়ী

মনু, মুন্না, গেসু আর অনু। চারজনই ক্ষমতাসীন দলের নেতা। শুধু নেতা বললে ভুল হবে, প্রভাবশালী নেতা। কাজী মনিরুল ইসলাম মনু যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি আর হারুন অর রশিদ মুন্না থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। গিয়াসউদ্দিন গেসু ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৪৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম অনু। এই চার নেতার জাঁতাকলে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকার বাসিন্দারা। তাদের নির্দেশনায় চলছে যাত্রাবাড়ী। স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন আসে, তাহলে এলাকার এমপি কোথায়? সারাদেশে নির্বাচনী এলাকা সাধারণত স্থানীয় এমপি ও তার লোকজন নিয়ন্ত্রণ করেন। তবে যাত্রাবাড়ী নিয়ন্ত্রণ করছেন এমপিকে পাশ কাটিয়ে এ চারজন। অনুসন্ধানে জানা গেছে, ঢাকা-৫ আসনের ডেমরা-সারুলিয়া এলাকা নিয়ন্ত্রণ করছেন এমপি হাবিবুর রহমান মোল্লার ছেলে মশিউর রহমান মোল্লা সজল। সজলের কথার বাইরে সেখানে কেউ কিছু করার সাহস পান না। তবে একই নির্বাচনী এলাকার যাত্রাবাড়ী নিয়ন্ত্রণ করছেন মনু, মুন্না, গেসু ও অনুরা। যাত্রাবাড়ীতে মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ, দখলবাজি, চাঁদাবাজি থেকে শুরু করে নানা অবৈধ কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। এলাকার কয়েক লাখ মানুষ যানজট, রাস্তার সমস্যা, বর্জ্য ব্যবস্থাপনাসহ নানা সমস্যায় হাবুডুবু খেলেও নেতারা আছেন নিজেদের স্বার্থ নিয়ে। এলাকার মানুষের সমস্যা সমাধানের চিন্তা না করে আগামী জাতীয় নির্বাচনে দলের টিকিট কীভাবে আনা যায়, তা নিয়ে ব্যস্ত এই নেতারা। গতকাল শনিবার স্থানীয় বাসিন্দা ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে যাত্রাবাড়ী এলাকার এমন চিত্র জানা গেছে।